Post a job

শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ

education and training

শিক্ষা কাকে বলে

শিক্ষা হচ্ছে মানুষকে সম্পদে পরিনত করার মাধ্যম । বাংলা শিক্ষা শব্দটি এসেছে ‍’শাস’ ধাতু থেকে। যার অর্থ শাসন করা বা উপদেশ দান করা। অন্যদিকে শিক্ষার ইংরেজি প্রতিশব্দ এডুকেশন ( education) এসেছে ল্যাটিন শব্দ এডুকেয়ার  ( educare) বা এডুকাতুম  (educatum ) থেকে। যার অর্থ বের করে আনা  (to lead out ) অর্থাৎ ভেতরের সম্ভাবনাকে বাইরে বের করে নিয়ে আসা বা বিকশিত করা। সক্রেটিসের ভাষায় “শিক্ষা হল মিথ্যার অপনোদন ও সত্যের বিকাশ।” এরিস্টটল বলেন “সুস্থ দেহে সুস্থ মন তৈরি করাই হল শিক্ষা”। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ভাষায় “শিক্ষা হল তাই যা আমাদের কেবল তথ্য পরিবেশনই করে না বিশ্বসত্তার সাথে সামঞ্জস্য রেখে আমাদের জীবনকে গড়ে তোলে।”

          শিক্ষা একটি চলমান প্রক্রিয়া, প্রতি মুহুর্তে আমাদেরকে বিভিন্ন বিষয়ের উপর শিক্ষা গ্রহন করার সুযোগ রয়েছে । শিক্ষা মানুয়ের মধ্যে লুকায়িত গুনাবলীর পূর্ন বিকাশ হতে সাহায্য করে । শিক্ষা মানুষকে দক্ষ হতে সাহায্য হতে সাহায্য করে । শিক্ষা মানুষের মধ্যে যে সকল সম্ভবনা লুকায়িত রয়েছে সেগুলোকে পূর্ণ বিকাশিত হতে সাহায্য করে । শিক্ষা মানুষকে চারিত্রিক গুনাবলী অজন করতে সাহায্য করে । কোন মানুষ চারিত্রিক গুনাবলী অর্জন ছাড়া যত শিক্ষাই অর্জন করুক না কেন সেই শিক্ষা কাহারো কোন কাজে আসে না ।

শিক্ষার মূল উপাদান তিনটি। এক, ব্যবহারিক জীবনে বুৎপত্তি লাভের জ্ঞান অর্জন। দুই, মানবিক গুণাবলী অর্জন। তিন, আত্মা তথা প্রাণের বিকাশ সাধন। এই তিনটি উপাদানের সম্মিলিত বৈশিষ্ট্য অর্জন করার নামই শিক্ষা লাভ।

ইংরেজ মহাকবি মিল্টন Body, Mind & Soul এর পরিশুদ্ধিকেই শিক্ষা বলেছে। একই ভাবে কোরআনের পরিভাষায়ও এই তিনটি উপাদানকেই শিক্ষার মূল বস্তু বলা হয়েছে।

বর্তমানে শিক্ষাটা একটি অবশ, একমুখো ও একদেশদর্শী শিক্ষায় পরিণত হয়েছে। তাই শিক্ষার্থীদের বিবেকে মানবিকতার বিকাশ ও কর্মে আত্মার অবদান অন্তঃসার শূন্যই থাকে। ফলে সার্টিফিকেট ধারী এসব শিক্ষিতদের হাত থেকে জাতি কিঞ্চিৎকর কল্যাণকর উপকার পায়না। বরং এসব শিক্ষিতদের হাতে দেশের ব্যাংক, বীমা, ব্যবসায়ে ডাকাতি হয় কলমের প্যাচে। ব্যক্তি ও রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা লুণ্ঠিত হয় দেশপ্রেমের অভাবে। নিজ দেশের গরীব অসহায় মানুষের সম্পদ লুট করে, অন্যদেশে চতুর্থ শ্রেণির মর্যাদা নিয়ে চিরস্থায়ী বসবাসের চিন্তা করে; লোভ আর হীনমন্যতার কারণে। নিজ দেশের জননেতার মর্যাদাকে লাথি মেরে অন্য দেশের চাকরের মত করে বসবাসকে গৌরব জনক মনে করে। এসবই বিদ্যা-শিক্ষার পঙ্গু বিন্যাসের কারণেই হয়।

তাই আসুন আমরা পাঠ্যপুস্তকের শিক্ষার পাশাপাশি এমন শিক্ষা অর্জন করি যা সমাজের চোখে আমাকে একজন আদর্শ মানুষ হিসাবে পরিচয় করে তুলে ।

প্রশিক্ষণ কাকে বলে:

এক জন মানুষকে তার বর্তমান যোগ্যতা থেকে আরো উন্নত কাজ সম্পাদন করতে সাহায্য করার নামই হচ্ছে প্রশিক্ষণ । এছাড়া ব্যক্তির বা প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীদের কার্যক্ষমতা উন্নতির জন্য প্রয়োজনীয় স্তরের জ্ঞান অর্জন করাই হচ্ছে প্রশিক্ষণ । প্রশিক্ষণ হলো একটি নির্দিষ্ট কাজ সম্পাদন করতে আপনার যে দক্ষতাগুলোর প্রয়োজন সেগুলো শেখার প্রক্রিয়া।প্রশিক্ষণ হচ্ছে একটি পরিকল্পিত কার্যক্রম। প্রশিক্ষণ গ্রহণের ফলে প্রশিক্ষণার্থীদের প্রয়োজনীয় জ্ঞান, দক্ষতা ও দৃষ্টিভঙ্গীর পরিবর্তন করা হয়। প্রশিক্ষণের উদ্দেশ্য হচ্ছে কোন ব্যক্তির জ্ঞান ও দক্ষতা বৃদ্ধি করা এবং দৃষ্টিভঙ্গীর পরিবর্তন সাধন করে কোন নির্দিষ্ট বিষয়ে তার যোগ্যতার উন্নতি ও সমৃদ্ধি সাধন করা।

          প্রশিক্ষণের কোন বিকল্প নেই । আপনার জীবনকে সমৃদ্ধ করতে হলে অবশ্যই প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে হবে । আপনি যত বেশি প্রশিক্ষিত হবেন ততই আপনার গ্রহণযোগ্যতা বৃদ্ধি পাবে । আপনি ছাত্র জীবনে অনেক বিষয়ের উপর প্রশিক্ষণ গ্রহন করতে পারেন যেমন কম্পিউটার, ইংরেজী ভাষা দক্ষতা অর্জন । আপনি যদি খুব বেশি একডেমিক শিক্ষা অর্জন না করতে পারেন, আপনি দ্রুত কোন একটি বিষয়ের উপর প্রশিক্ষণ গ্রহণ করুন । বর্তমানে অনেক দেশে কারিগরি শিক্ষার উপর গুরুত্ব দিচ্ছে । আপনি কারিগরি শিক্ষা অর্জন করে নিজেকে দক্ষ করে গড়ে তুলতে পারেন । এছাড়া আপনি ওয়াল্ডিং, মোবাইল সার্ভিসিং, ইলেট্রিক, ইলেট্রিনিক্স, গ্রাফিক্স,হোটেল ম্যানেজম্যন্ট, মৎস্য চাষ,পোল্টি এমনকি প্যাকেট তৈরি, জুতা তৈরি, কলম তৈরি করার মত বিভিন্ন বিষয় উপর প্রশিক্ষন নিয়ে নিজের জীবনকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারেন ।

          কোন কোন ক্ষেত্রে আমাদের চাকরি জীবনে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে হয় । বাংলাদেশে মানুষের একাডেমিক যোগ্যতার সাথে অনেক ক্ষেত্রে  চাকুরি মিল থাকে না, তাই দেখা যায় চাকুরিতে যোগদান করার পর তাকে চাকুরির সাথে সম্পর্কিত বিষয়ের উপর প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে হয় । তাই প্রশিক্ষণ চাকুরির আগে হতে পারে আবার পরেও হতে পারে । অথ্যাৎ সকল ক্ষেত্রে প্রশিক্ষণ গ্রহণের প্রয়োজন রয়েছে ।

বাংলাদেশে এখনও প্রশিক্ষিত জনশক্তির অভাব রয়েছে এমনকি উন্নত বিশ্বে বা প্রবাসেও প্রশিক্ষিত জনশক্তির চাহিদা অনেক বেশি । আপনি যোগ্যতা যত বেশি আপনার বেতন তত বেশি হবে । তাই সময়ের সাহে তাল মিলেয়ে আমাদেরকে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে হবে, তাহলে আমরা নিজের এবং জাতির উন্নতি করতে পারবো ।

আপনি আমাদের সাইটে আপনার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ঠিকানা, বৈশিষ্ট্য, বর্ণনা দিয়ে অন্যকে সহযোগীতা করতে পারেন এছাড়া প্রশিক্ষনের বিষয়, স্থান ও প্রশিক্ষণ শেষে কি কি সুবিধা পাওয়া যেতে পারে তা উল্লেখ করুন ।

nasir22g

Author Since:  April 11, 2020

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.